অনলাইন ইনকাম করার ১০টি সহজ মাধ্যম ২০২২

অনলাইন থেকে ইনকাম, অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম এবং অনলাইনের মাধ্যমে আয় চারদিকেই শোনা যায় এ অনলাইন ইনকামের নানান কথা। প্রকৃতপক্ষে কি এই অনলাইন ইনকাম? কিভাবে করব অনলাইন ইনকাম? অনলাইন থেকে কি সত্যিই ইনকাম হবে? অনলাইন থেকে ইনকাম করার সহজ উপায় ২০২২ নিয়ে এলো এসব সমস্যার সমাধান। আশা করি সম্পূর্ণ লেখাটি মনযোগ দিয়ে পড়বেন।

আশা করি সকলেই ভালো আছেন। টাইটেল দেখেই হইত বুঝে গেছেন আজ আমরা কোন বিষয় নিয়ে কথা বলব। তো চলুন শুরু করা যাক।

প্রথমেই আমরা জেনে নিই অনলাইন থেকে আয় কাকে বলে? সত্যিই অনলাইন থেকে ইনকাম করা যায় কী যায় না? এবং কিভাবে সহজ উপায়ে আপনি অনলাইন থেকে ইনকাম করতে পারবেন এসব সকল বিষয় নিয়ে লেখা হয়েছে আজকের এই আর্টিকেল।

অনলাইন ইনকাম কি? (What Is Online Income?)

অনলাইনের সাথে আমরা ছোট বড় সকলেই পরিচিত। আপনি যে আমাদের এই সাইটে এসে আমাদের লেখা আর্টিকেল টি পড়ছেন এটাও সম্ভব হয়েছে শুধু অনলাইন বা ইন্টারনেট এর সাথে পরিচিত থাকার জন্য। আমরা অনলাইনকে কাজে লাগিয়ে বা আমরা অনলাইনের সাথে যুক্ত থেকে অনেকেই টাকা ইনকাম করছি আর এটাই হলো অনলাইন ইনকাম।

সত্যিই কি অনলাইন থেকে ইনকাম করা সম্ভব?

অনেকেই বলেন আমরা অনলাইন এ কাজ করতে গিয়ে আমাদের অনেক টাকা নষ্ট হয়েছে তবে কোন প্রকার লাভ হয়নি। আবার অনেকেই বলেথাকেন ইনভেস্ট ছাড়াও কিছুই সম্ভব না। আবার অনেকেই একে এসব ভুয়া বলে থাকেন।

সত্যি কথা বলতে আপনি যদি কিছু সাধারণ জ্ঞান, পরিশ্রম এবং ধর্য্য নিয়ে কাজে লেগে থাকতে পারেন তবে অবশ্যই আপনি অনলাইন থেকে টাকা ইনকাম করতে সফল হবেন। সঠিক ভাবে কাজ করতে পারলে আপনার জন্য ইনভেস্ট ছাড়াই ইনকাম করা সহজ হবে।

অনেকেই আছেন যারা বলে থাকেন মোবাইল দিয়ে নাকি অনলাইনে কোনো প্রকার কাজ করা যায় না। হ্যাঁ, এটাও সত্যি যদি সব কাজ মোবাইল দিয়েই করা যায় তবে কম্পিউটার অথবা ল্যাপটবের কি দরকার। কিন্তু কিছু কিছু কাজ রয়েছে যা মোবাইল দিয়েও কো সহজ।

কেন অনলাইন থেকে ইনকাম করবো? (Why should You Earn From Online?)

আমরা যারা লেখাপড়া করি অথবা যারা বাড়িতে বেশিরভাগ সময় কাটাই তারা সকলেই চাই যে নিজের খরচ নিজেই চালানোর জন্য। আবার যারা কোনো কর্মক্ষেত্রে যুক্ত আছেন তাদের মধ্যেও অনেকে চায় কতাদের ‍ফ্রি টাইমে অতিরিক্ত কিছু টাকা আয় করার জন্য। তাদের জন্য সুবর্ন  সুযোগ হিসেবে রয়েছে অনলাইন ইনকাম ।

অনলেইনে আপনি আপনার ইচ্ছে অনোযায়ি পছন্দ মতো যে কোন সময়ে পছন্দ মতো যে কোনো সেক্টরে কাজ করতে পারবেন। এখানে আপনাকে কোনো বসের হুকুম মেনে বা কোনো আলাদা ঝামেলা করতে হবে না। তাই আপনারা চাইলেই অতিরিক্ত সময় কাজে লাগিয়ে কিছু বাড়তি টাকা আয় করতে অনলাইন ব্যবহার করতে পারেন। আপনার যদি সময় থাকে আপনি চাইল ফুল-টাইমও অনলাইনে দিতে পারবেন। অনেকেই ফুল-টাইম অনলাইনে কাটিয়ে অনলাইন থেকে ভালো পরিমান টাকা উর্পজন করে থাকেন।

চলোন এখন আমাদের আর্টিকেলের মূল টপিকে যাওয়া যাক। এখানে আমরা আলেচনা করবো অনলাইন আয়ের সহজ মাধ্যম গুলো নিয়ে। অনলাইন থেকে ইনকাম করার সহজ মধ্যম গুলি নিচে ক্রমানোসারে দেওযা হলোঃ

1. ব্লগিং করে আয় (Blogging)

অনলাইন থেকে আয়ের মধ্যম গুলের মধ্য একটি পুরোনো শধ্যম হলো ব্লগিং করে ইনকাম বা লেখালেখি ইনকাম করা। এটি অনেক পুরোনোএবং অনেক কার্যকর একটা উপায়। পুরো পৃথিবি শুধু তাই নয় বাংলাদেশেও বতর্মানে অনেক ব্লগার রয়েছেন যারা নিজেদের ইনকামের জন্য  অন্যের ব্লগে লেখালেখি করে অনেক টাকা আয় করছেন।

এখন আপনি যে আমাদের ওয়েবসাইট এ এসেছেন এটাও একটি ব্লগ সাইট এবং আমি যে এই আর্টিকেল লিখেছি এটাকেই ব্লগিং বলা হয়।

সকল মানুষরই আলাদা আলাদা ইউনিক প্রতিভা থাকে এবং ভালো লাগারও আলাদা বিষয় থাকে। এক কথায় বলতে গেলে সকল মানুষই কোনো একটি বিষয় নিয়ে খুব ভালো ভাবে অভিজ্ঞ থাকে। ধরুন আপনি ভালো রান্না পারেন। তবে আপনি নিজের একটি ব্লগ সাইট তৈরি করে সেখানে বিভিন্ন রান্নার রেসিপির নিয়মকানুন লিখে আর্টিকেল পোস্ট করতে পারবেন।

অনেকেই গুগলে এসে মাংস  কিভাবে রান্না করতে হয় এটা চেয়ে সার্চ করে থাকে। এখন আপনার ব্লগে মাংস রান্নার নিয়ম নিয়ে পোস্ট করা আছে এবং তা গুগলে এড করেছেন তাহলে যারা মাংস রান্নার নিয়ম  লিখে সার্চ করবে তাদের মধ্যে কিছু ট্রাফিক আপনার ব্লগে আসবে এবং আপনার আর্টিকেলে দেওয়া নিয়ম অনুযায়ী রান্না করবে। যদি আপনার লেখা গ্রাহকদের ভালো লেগে যায় তাহলে সে আপনার ব্লগে আসবে আরো নতুন কোনো কিছু শিখার জন্য।

এছাড়াও আপনার ব্লগে এড সেল, গুগল এডসেন্স, প্রোডাক্ট প্রমোট এবং অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং ইত্যাদি করেও ভালো পরিমানে টাকা আয় করতে পারবেন।

2. ইউটিউব থেকে আয় (Online Income From YouTube)

 যদি কেউ দ্রুত অনলাইন থেকে টাকা আয় করতে চান, তবে আপনার উচিত হবে একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলে টাকা ইনকাম করা। ইউটিউব থেকে টাকা ইনকাম করা তুলনামুলক ভাবে অন্যান্য অনলাইন আয় করার মাধ্যমের চেয়ে  অনেক সহজ।

ইউটিউব থেকে ইনকাম করার জন্য আপনাকে অবশ্যই একটি ইউটিউব চ্যানেল খুলে নিতে হবে। তারপর আপনার ইউটিউব চ্যানেলে ভালো মানের ভিডিও আপলোড করতে হবে। গুগল এডসেন্স এর জন্য ্আবেদন করতে হবে।আপনার গুগল এডসেন্স আবেদন অ্যাপ্রুভ হলে আপনার ইউটিউব ভিডিওতে এড দেখাবে।এবং ওই এড দেখানোর জন্যই আপনার গুগল এডসেন্স একাউন্টে টাকা যোগ হবে।

ইউটিউবের শর্ত অনোযায়ি গুগল অ্যাডসেন্স পাওয়ার জন্য আপনার চ্যানেলের বিগত এক বছরে 1000 সাবস্ক্রাইবার এবং 4000 ঘন্টা ওয়াচ টাইম হতে হবে।

3. ডিজিটাল মার্কেটিং করে আয় (Digital Marketing)

মার্কেটিং বিষয়টির সাথে আমরা সকলেই ভালোভবে পরিচিত।মাকের্টিং হলো কোনো একটি কম্পানির প্রোডাক্ট এর কথা বেশি মানুষের কাছে প্রচার করা। ঠিক অনলাইন এর মাধ্যমে কোন কম্পানির প্রচার করাকে ডিজিটলি মার্কেটিং বলা হয়। কাজটা অনেক সহজ মনে হলেও ডিজিটাল মার্কেটিং  শিখা এবং এটা নিয়ে কাজ করা অনেক ধর্য্যের ব্যপার।

ডিজিটাল মার্কেটিং এর কিছু শাখা নিচে দেওয়া হলোঃ

  • ফেসবুক মার্কেটিং।
  • ইউটিউব মার্কেটিং।
  • ইমেইল মার্কেটিংসার্চ।
  • ইন্জিন অপটিমাইজেশন ( এসইও)।
  • ইনস্ট্রাগ্রাম মার্কেটিং।
  • ডিজিটাল প্রোডাক্ট বিক্রি।

এখন আমাদের বাংলাদেশে অনেকে প্রতিষ্ঠান রয়েছে যারা ডিজিটাল মার্কেটিং শিখিয়ে থাকেন। আপনি যদি  সেই প্রতিষ্ঠান থেকে তিন থেকে ছয় মাসের একটা কোর্স করে ডিজিটাল মার্কেটিং শিখতে পারেন তবে আপনি অনলাইনে থাকা বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে এবং বিভিন্ন কম্পানির মার্কেটার হয়ে কাজ করার সুযোগ পাবেন।

সল্প খরচ, অল্প সময় এবং ঘরে বসেই এই কাজটি করা যায় বলে এখন প্রায় সকল কম্পানি ডিজিটাল মার্কেটিং এর দিকে বেশি ঝোঁকছে। দিন দিন ডিজিটাল মার্কেটিং এর চাহিদা ব্যপক হারে বাড়ছে। তাই এখন ডিজিটাল মার্কেটিং করা হতে পারে এক জন বুদ্ধিমানের কাজ।

4. অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে আয় (Affiliate Marketing)

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং, ডিজিটাল মার্কেটিং এবং ব্লগিং এর একটা নির্দিষ্ট অংশ হলেও এটা নিয়েআমরা আলাদা ভাবে আলোচনা করছি।একজন সফল অ্যাফিলিয়েট মার্কেটার প্রতি মাসে প্রায় লক্ষাধিক টাকা ইনকাম করে থাকে কোনো প্রকার ইনভেস্ট ছাড়াই। আপনি চাইলে এ সেক্টরে কাজ করে দেখতে পারেন।

অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং এর সাথে আমরা সকলেই পরিচিত না হলেও এর জনপ্রিয়তা দিনদিন বাড়েই চলেছে। আমাদের আশেপাশে অনেকেই আছে যারা টাকা ইনভেস্ট করে বিভিন্ন ধরনের পণ্য বিক্রি করছে এবং মাসে লক্ষাধিক টাকা লাভ করছে। কিন্তু আমাদের মজে এমন লোক আছে যারা শুধু মাত্র মূলধন না থাকার কারণে কোন ব্যবসা করতে পারছি না।

এটার জন্য বিভিন্ন বড় কম্পানি গুলো একটা বিষেশ সেক্টর চালু করেছেন যেখান থেকে যাদের নিজস্ব ব্যবসার টাকা নেই এবং যাদেরে আছে তারাও সেই কম্পানির দেওয়া প্রোডাক্ট এর লিংক নিয়ে মার্কেটিং করতে পারে এবং যখন কোন একজন আপনার দেওয়া ঐ লিংক থেকে পন্যটি ক্রয় করবে তখন তার থেকে লাভের কিছু অংশ কম্পানি আপনাকে দিবে।

বর্তমানে অনেক ওয়েবসাইট রয়েছে যারা তাদের নিজেদের প্রোডাক্ট গুলো অনলাইনে বিক্রি করে থাকে। তাদেরকে ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান বলা হয়ে থাকে। বিশ্বের সকল ই-কমার্স সাইট অ্যাফিলিয়েট অপশনটি চালু করা আছে যার থেকে আপনিও সহজেই অনলাইনে আয় করতে পারবেন।

এজন্য আপনার দরকার হবে শুধু একটা ওয়েবসাইট বা একটি ফেসবুক পেইজ অথবা ইউটিউব চ্যানেল হলেও হবে। এই তিনাট সাইট একসাথে থাকলে আপনার জন্য অনেক ভালো হবে। এই তিনটি প্লাটর্ফমে আপনি কোনো লিংক দিয়ে থাকলে কেউ সেখান থেকে কেউ কিছু পন্য ক্রয় করলে তা থেকে আপনি অনেক পরিমানে কমিশন পাবেন। আপনি চাইলে অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং করে আপনার নিজের ক্যরিয়ার গড়তে পারেন

5. ছবি তোলে আয় (Online Income By Picture)

বর্তমানের এই যুগে ছোট থেকে বড় সকলের হাতে হাতেই আজ স্মার্ট ফোন দেখা যায়।বর্তমান তো মানুষ উঠতে বসতে এমনকি খাওয়ার সময়ও ছবি উঠিয়ে বিভিন্ন সোশ্যাল মিডিয়াতে আপলোড করেন থাকেন। কিন্তু আপনি কখনো কি ভেবে দেখেছেন আপিনার মোবাইল দিয়ে তোলা ছবি অনলাইনে বিক্রি করে আপনি অনেক টাকা আয় করতে পারেন।

সত্যি এটা বিশ্বাস না হওয়ার মতো একটি কথা।কিন্তু এটাই সত্যি যে আপনি আপনার হাতের থাকা স্মার্ট ফোন দিয়ে ভালো করে ছবি তুলে তা বিভিন্ন মার্কেটপ্লেসে বিক্রি করে আয় করতে পারবেন। এটা  আপনার জন্য হতে পারে  একটি অনলাইন থেকে ইনকাম করার সহজ মাধ্যম।

এজন্য আপনাকে কোনো কিউট একটি প্রাণী বা কোনো সুন্দর একটি স্থানের ছবি তুলতে নিতে হবে। তারপর আপনি যদি এডিট করতে পারেন তবে কিছু এডিট করতে নিতে পারেন। এডিট শেষ করে নিচে থাকা ওয়েবসাইট গুলোতে গিয়ে raw ফাইল সহ ছবিটি  আপলোড করুন। সবকিছু ঠিক থাকলে আপনি এর বিনিময়ে  ঐ সাইট থেকে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

জনপ্রিয় ওয়েবসাইট গুলোর নামঃ

  1.  500px 
  2. Shutterstock
  3. Envato 

এই মার্কেটপ্লেস গুলো বেশি জনপ্রিয় এবং অধিক পরিমাণ টাকা প্রদান করে থাকে। তাই আমি বলি শুধু ছবি তোলে ফেসবুকে না দিয়ে এই কাজ করুন তবে নিজের পকেট খরচ চালাতে পারবেন।

6. ডিজিটাল প্রোডাক্ট বিক্রি করে আয় (Sell Digital Product)

এই সাইটের সাথে আমরা পরিচিত না হলেও বর্তমানে এর চাহিদা ব্যাপক। এই সেক্টরে রয়েছে একাধিক কাজ করার সুযোগ। কিছু জনপ্রিয় ডিজিটাল প্রোডাক্ট এর নাম দেওয়া হলোঃ

  1. লগো ডিজাইনওয়েব
  2. এসইও 
  3. ডিজাইন
  4. গ্রাফিক্স ডিজাইন
  5. ডিজিটাল মার্কেটিং
  6. ভিডিও এডিটিং
  7. ক্লায়েন্টকে বিভিন্ন বিষয়ে পরামর্শ দেওয়া,ইত্যাদি।

এই রকম অসংখ্যা কাজ রয়েছে যেগুলোর কোনো একটি কাজ আপনি আয়ত্ত করে অনলাইন থেকে ভালো পরিমাণ টাকা আনকাম করতে পারবেন।

Freelancing, Fiverr, Upwork, PeoplePerHour এই মার্কেটপ্লেসে অনলাইন আপনার স্কিল বিক্রি করে ভালো পরিমানে টাকা ইনকাম করতে পারবেন।

7. রেফার করে আয় (Reffer Online Earn)

অনলাইনে অনেক অ্যাপস রয়েছে যেখানে রেফার করে ইনকাম করার সুযোগ রয়েছে।

আপনি অনেক এপস বা ওয়েবসাইট দেখবেন যেগুলো থেকে আপনাকে অফার করা হবে  যে তাদের অ্যাপে সাইন আপ করলেই কিছু টাকা আপনাকে দেওয়া হবে বোনাস হিসেবে এবং সেখানে সাইন আপ করার পর আপনাকে একটা লিংক দেওয়া হবে এবং সেটাই আপনার রেফার কোড। আপনার রেফারে কোডে আরো কেউ সাইনআপ করলে আপনিও তার ইনকাম থেকে কিছু কমিশন পাবেন।

আপনি চা্ইলে আপনার বন্ধুদের রেফার করিয়ে মাসে প্রচুর পরিমানে টাকা ইনকাম করতে পারেন। এটাই হলো অনলাইন ইনকামের সবথেকে সহজ উপায়।

8. ডোমেইন – হোস্টিং বিক্রি করা (Sell Domain and Hosting)

বর্তমান যুগে ওয়েবসাইট আমাদের কাছে একটি  নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের মতে হয়ে উঠেছে। প্রতিদিন তৈরি হচ্ছে লাক্ষ-লাক্ষ নতুন ওয়েবসাইট । একটি ওয়েবসাইট তৈরি করার জন্য একটি ডোমেইন এবং হোস্টিং এর প্রয়োজন হয়।ডোসেইন হলো সাইটের নাম এবং হোস্টিং হলো নির্দিষ্ট জায়গা।

আপনাকে অবশ্যই ভালো পরিমানে টাকা ইনকাম করার জন্য আপনাকে ভালো কোনো কম্পানির থেকে ডোমেইন-হোস্টিং এর রিসেলিং অ্যাকাউন্ট করে সেখান থেকে থেকে ডোমেইন-হোস্টিং বিক্রি করতে পারেন  এবং এর বিনিময়ে আপনি প্রতি মাসে ভালো পরিমানে টাকা ইয় করতে পারবেন।

আর এই ব্যাবসার মধ্যমে আপনি আপনার সারা জীবন অনর্গল টাক আয় করতে পারবেন।

মনেকরুন একজন গ্রাহক আপনার কাছ থেকে হোস্টিং কিনলো ছয় মাস বা ১ বছরের জন্য। যদি আপনি আপনার গ্রাহকদেরকে ভালো সার্ভিস দিতে পারেন তবে সে পরের বছরেও আপনারকাছ থেকেই হোস্টিং ক্রয় করবে এভাবে আপনি সরা জীবন প্রতিটি গ্রাহকের কাছ থেকে টাকা পেযে থাকবেন।

9. ডোমেইন ইনভেস্টিং করে আয় (Domain Investing)

এই সাইটটি আপনাদের কাছে নতুন মনে হলেও এটি একটি জনপ্রিয় সাইট আপনি চাইলে এর থেকে বিশাল পরিমাণ টাকা ইনকাম করতে পারবেন।আপনাকে শুধু মার্ত ডোমেইন রিসার্চ এর সাধারন জ্ঞান থাকলেই আপনি এই সেক্টরে সফলতা অর্জন করতে পারবেন।

আমরা যে গুগল নামে সাইট ব্যবহার করি সেটার প্রধান ডোমেইন হলো Google.com এখন আপনি যদি Google.Com.Bd নামে একটি সাব ডোমেইন কিনেরাখুন তাহলে গুগল যখন বাংলাদেশে তাদের অফিস চালু করবে  তখন তাদের আপনার কেনা ঐ সাব ডোমেইন এর প্রয়োজন হবে এবং তার বিপুল পরিমাণ টাকা দিয়ে গুগল আপনার কাছ থেকে তা কিনে নিবে।

এখন মনে করুন আপনি আজ ৮-১০ ডলার দিয়ে একটা ডোমেইন কিনে রেখে দিতে পারেন কয়েকবছর পর সেই ডোমেইন এর দাম হতে পারে কয়েক গুন বেশি । এটি শুনতে অদ্ভূত লাগলে আমাদের দেশের অনেকেই এই সেক্টরে কাজ করে অনেক টাকা আয় করছে।

10. ফেসবুক থেকে আয় (Earn From Facebook)

আমাদের দেশের সবচেয়ে জনপ্রিয় সোশাল মিডিয়া হলো ফেসবুক।আমাদের সকলেেই রয়েছে একটি করে  ফেসবুক একাউন্ট।কিন্ত আমরা কি কখনো ভেবে দেখেছি ফেসবুক থেকেও ইনকাম করা যায়। 

এখন অনেকের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে আসলে ফেসবুক থেকে কিভাবে ইনকাম করা সম্ভব?

আপনি যদি ফেসবুকের বা বর্তমান মেটা কম্পানি থেকে টাকা ইনকাম করতে চান তাহলে আপনার জন্য রয়েছে দুটি উপায় আছে।প্রথম মাধ্যমটি হলো ফেসবুকের ডেভোলপার যেখান থেকে আপনি আপনার বানানো অ্যাপ্স এ ফেসবুকের এড দেখিয়ে ইনকাম করা আর অন্যটি হলো আপনার ফেসবুক পেইজ কে মনিটাইজ করে নেওয়।।

আমরা সকলেই ফেসবুক চালিয়ে আমাদের অবসর টাইম কাটায়।অনেকেই আবার দিনের ২৪ ঘন্টার মাঝে সর্বনিম্ন ৩-৪ ঘন্টা ফেসবুক ব্যবহার করে কাটিয়ে থাক।

আপনি চাইলে ফেসবুক কে কাজে লাগিয়ে আপনি ইনকাম করতে চন তাহলে আপনার  জন্য রয়েছে বেশ কয়েকটি উপায় ।যেমনঃ অ্যাফিলিয়েট মার্কেটিং বা নিজস্ব প্রোডাক্ট বিক্রি করা, বিভিন্ন ডিজিটাল প্রোডাক্ট বিক্রি করা ইত্যাদি।

আমাদের শেষ কথাঃ

আমরা সকলেই সারা দিন মোবাইল বা কম্পিউটার নিয়ে সময় কাটিয়ে থাকি।কিন্তু এসব থেকে যে টাকা আয় করা যায় তা নিয়ে কখনো চিন্নাতা করিনা। আমরা প্রতিনিয়ত আমাদের নিজেদের মূল্যবান সময় গুলো নষ্ট করে যাচ্ছি সেটা হয়তো কখনো ভেবে দেখি না। তাই আমরা সকলেই নিজের সময়কে কাজে লাগিয়ে উপার্যন করার চেষ্টা করব।

আমাদের লেখাটি আপনার ভালো লাগলে এবং আমার লেখাটি পড়ে আপনি নতুন কিছু শিখতে পারলে আপনার বন্ধুদের সাথে শেয়ার করতে পারেন।

আমার লেখাটি কেমন লাগলো কমেন্ট করে জানাবেন।ধন্যবাদ।

To Write Your Thoughts Please Login First

Login

গুগল এডসেন্স পাওয়ার উপায় । গুগল এডসেন্স এর নিয়ম

গুগল এডসেন্স কে সোনার হরিণ ও বলা হয়। কেননা এটা খুবই মূল্যবান একটি এডভার্টিসমেন্ট একাউটন্ট। আজকে আমি আলোচনা করব কিভাবে গুগল এডসেন্স পাওয়া যায় ও...

ফেসবুক থেকে কিভাবে অনলাইনে আয় করা যায়- জানুন বিস্তারিত!!

সবচেয়ে সেরা সোশ্যাল মিডিয়া প্লাটফর্ম এর কথা জিজ্ঞেস করলে আপনার কাছে তার উত্তর কি হবে? নিশ্চয় ফেসবুক তাই না? হ্যাঁ, আপনার মতো ৫ বিলিয়ন মানুষের...

অনলাইন ইনকামের গোপন রহস্য- জিনে নিন এবং ধুমসে অনলাইন আয় করুন

অনলাইন ইনকাম বিষয়টি এখন একটি ট্রেন্ড হয়ে দাঁড়িয়েছে। অনেকেই চাকরি এবং পড়ালেখার পাশাপাশি অনলাইন থেকে ভালো পরিমাণে ইনকাম করছেন। আবার অনেকেই এই পেশা নতুন করে...

গ্রাফিক্স ডিজাইন কি? Graphics Design করে কিভাবে আয় করবেন ?

আমরা মুভি কিংবা অ্যানিমেশন সবাই দেখে থাকি| যে কোনো ক্ষেত্রে এরকম কিছু বিষয় থাকে যেখানে গ্রাফিক্স ডিজাইন উপস্থিত। কিন্তু আমরা সেগুলো ব্যবহার করে থাকলেও ভাবি না মূল...